SylhetNews24.com

এক পক্ষের বিক্ষোভ মিছিল-অন্য পক্ষের সংবর্ধনা

কোম্পানীগঞ্জে ইউএনও’র সংবর্ধনা নিয়ে দিনভর উত্তেজনা

সিলেটনিউজ২৪.কম

প্রকাশিত : ০৫:২৯ পিএম, ২৫ এপ্রিল ২০১১ সোমবার | আপডেট: ০৪:৩৯ পিএম, ২৬ এপ্রিল ২০১১ মঙ্গলবার


কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সংবর্ধনা নিয়ে সোমবার দিনভর উত্তেজনা বিরাজ করে।পক্ষে বিপক্ষে উপজেলা দু’ভাইস চেয়ারম্যান মুখোমখি অবস্তান নেয়ায এই উত্তেজনা দেখা দেয়।

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বদলী উপলক্ষে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ইয়াকুব আলী সংবর্ধনার আয়োজন করেন।এর বিপক্ষে অবস্তান নেন উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাসরিন জাহান ফাতেমা।


এদিকে,কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আমিনুল ইসলামের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অপকর্ম এবং দুর্নীতির অভিযোগ তুলে গতকাল বেলা ১১ টায় থানাবাজারস্থ ভূমি অফিসের সামনে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশের আয়োজন করা হয়।

কোম্পানীগঞ্জ ছাত্র পরিষদ, ইয়ং স্টার ক্লাব এবং সচেতন এলাকাবাসী ওই সমাবেশের আয়োজন করে। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নাসরিন জাহান ফাতেমা। সভাপতিত্ব করেন মইন উদ্দিন মেম্বার।

সমাবেশ শুরু হওয়ার পর খবর আসে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আমিনুল ইসলামকে প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে। এই খবরে বিক্ষোভ সমাবেশকে শোকরানা সমাবেশ হিসেবে ঘোষণা দেওয়া হয় ।

 
সমাবেশে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা বিআরডিবি চেয়ারম্যান ও ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নেতা জামাল উদ্দিন, উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক বজলু পাঠান, দপ্তর সম্পাদক আবদুন নূর, সাংবাদিক আবুল হোসেন, সমাজসেবী বাবুল মিয়া, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গুলজার হোসেন, যুবদল সভাপতি আলী আকবর, কৃষক লীগ সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী ও থানাবাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন।    
     
সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নাসরিন জাহান ফাতেমা বলেন, কোম্পানীগঞ্জের খেটে খাওয়া হাজার হাজার মানুষের রক্তঝরা ঘামের কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম।

এছাড়া গত ১৬ মাসে ঐ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শতশত অনিয়মের জন্ম দিয়েছেন। যার জন্য এই উপজেলার মানুষ চরমভাবে নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। সরকার বঞ্চিত হয়েছে কোটি কোটি টাকার রাজস্ব থেকে।

তিনি বলেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে শুধু প্রত্যাহার করলে চলবে না। তার বিরুদ্ধে আনিত সকল অভিযোগ তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহন করতে হবে।

পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কুশপুত্তলিকা নিয়ে বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি উপজেলা সদরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে কুশপুত্তলিকা দাহ করে। 

সমাবেশ এবং মিছিল শেষ হওয়ার এক ঘন্টার মাথায় সন্ত্রাসীরা প্রতিবাদকারী যুবক মহি উদ্দিন মামুনের উপর হামলা হয়েছে।

এদিকে, উপজেলা অডিটোরিয়ামে অপর পক্ষ সংবর্ধনা দিয়েছে।এতে উপজেলা চেযারম্যান তৈয়বুর রহমান ,মুত্তিযোদ্দা কমান্ডার শামসুদ্দোহা,আ’লীগ সভাপতি আলী আহমদ,আফতাব আলীকালা মিয়া, ভাইস চেয়ারম্যান ইয়াকুব আলী ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম বক্তব্য রাখেন।