SylhetNews24.com

ওসমানীনগরে আ`লীগের দুই প্রার্থীর নির্বাচনী সহিংসতায় কিশোর খুন

সিলেটনিউজ২৪.কম

প্রকাশিত : ০২:২৮ পিএম, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ রোববার

সিলেটের ওসমানীনগরে আ`লীগের  দুই প্রার্থীর নির্বাচনী সহিংসতায় সাইফুল ইসলাম (১৬) নামের এক কিশোর খুন হয়েছে।

রোববার উপজেলার সাদীপুর ইউপির বাংলাবাজার হাতানিপাড়ায় আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী আতাউর রহমান ও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী জগলু চৌধুরীর লোকজনের মধ্যে এ সংঘর্ষের সময় ওই কিষোর গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যায়।

নিহত সাইফুল জগন্নাথপুর উপজেলার উত্তর কালনীচর গ্রামের মৃত শরফ উদ্দিনের ছেলে।এ ঘটনায় আহত হয়েছেন অন্তত শতাধিক।

তবে আহতদের পরিচয় তাৎক্ষনিকভাবে জানা যায়নি। আহতদের সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও জগন্নাথপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ঘটনার প্রতিবাদে স্থানীয় আওয়ামী লীগ সমর্থকরা সকাল সাড়ে ১১টা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত সিলেট-ঢাকা মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, গতকাল শনিবার বিকেলে ওসমানীনগর উপজেলা নির্বাচনে আ’লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী জগলু চৌধুরীকে নিয়ে সাদীপুর ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান ও আ’লীগ নেতা কবির উদ্দিন, আরজু মেম্বার, তার ভাই বাহার মিয়াসহ বেশ কিছু সমর্থক সাদীপুর ইউপি`র বাংলাবাজারে গণসংযোগে যান। সেখানে একটি চা স্টলে জগন্নাথপুর উপজেলার উত্তর কালনীচরের আল আমিন সহ ৬ যুবক নাস্তা করছিলেন। এ সময় জগলু চৌধুরীর সমর্থক বাহার মিয়া ও কবির উদ্দিন তাদেরকে জগলু চৌধুরীর পক্ষে কাজ করতে বলেন। কিন্তু ওই যুবকরা নিজেদের উপজেলা নির্বাচনে আ`লীগের প্রার্থী আতাউর রহমানের সমর্থক পরিচয় দিয়ে জগলু চৌধুরীর পক্ষে কাজ করতে অপারগতা জানালে উভয়পক্ষের মধ্যে ঝগড়া বেধে যায়।

বিষয়টি সাময়িকভাবে শেষ হলেও আজ রোববার সকালে বিষয়টি সালিশের মাধ্যমে সমাধান হবার কথা ছিলো। কিন্তু সকাল দশটার দিকে বাহার মিয়ার পক্ষের লোকজন উত্তর কালনীচরের আল আমিন ও তার পক্ষের লোকজনের ওপর আগ্নেয়াস্ত্রসহ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। এ সময় দু`পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়।

প্রায় দুই ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই নিহত হয় সাইফুল। আহত হন আরো প্রায় শতাধিক ব্যক্তি।

পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে। সংঘর্ষের পর এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।