ঢাকা, ২৪ মে, ২০২২
SylhetNews24.com
শিরোনাম:

১৬৩ ঘন্টা পর অনশন ভাঙলেন শাবি শিক্ষার্থীরা:পদত্যাগের আন্দোলন চলবে

খালেদ আহমদ,সিলেট

প্রকাশিত: ২৬ জানুয়ারি ২০২২  

সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে(শাবিপ্রবি) ভিসির পদত্যাগের এক দফা দাবিতে আমরণ অনশনের ৮ম দিনে বুধবার (২৬ জানুয়ারি) সকাল ১০টা ২৫ মিনিটের দিকে অনশনরত শিক্ষার্থীদের পানি পান করিয়ে শিক্ষার্থীদের অনশন ভাঙান শাবির সাবেক অধ্যাপক জনপ্রিয় কথা সাহিত্যিক . মুহম্মদ জাফর ইকবাল

গত ১৯ জানুয়ারি বুধবার থেকে ভিসির পদত্যাগের দাবিতে আমরণ অনশন শুরু করে শিক্ষার্থীরা টানা ৭দিন পর অনশন ভাঙলেও শাবি ভিসি পদত্যাগের আন্দোলন অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা

এর আগে সকাল ১০টায় পুলিশ প্রহরায় একটি মিনিবাস ও একটি এম্ব্যুলেন্সে করে বিভিন্ন হাসপাতালে স্হানান্তরিত অসুস্হ অনশনকারী ২০ জনকে শাবি ক্যাম্পাসের অনশনস্হলে নিয়ে আসা হয়। পরে ২৮ জনকে পানি পাণ করিয়ে এক সাথে অনশন ভাঙান ড. জাফর ইকবাল দম্পতি।

এসময় তিনি আন্দোলন দমানোর জন্য কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তগুলোর কঠোর সমালোচনা করেছেন অধ্যাপক . জাফর ইকবাল এবং বিষয়গুলোকে অমানবিক, নিষ্ঠুর দানবীয় বলে অবহিত করেছেন

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের অনশন ভাঙানো শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন অধ্যাপক . মুহম্মদ জাফর ইকবাল অধ্যাপক . ইয়াসমিন হক দম্পতি সাংবাদিকদের . জাফর ইকবাল বলেন, শিক্ষার্থীরা আমার কথা মতো অনশন ভঙ্গ করেছে আমরা তাদের কাছে কৃতজ্ঞ এখন তাদের হাসপাতালে নিতে হবে তারা যেন সুস্থ হয়ে ওঠে ঠিকভাবে সেটা নিশ্চিত করতে হবে

আন্দোলন থামানোর পদক্ষেপগুলো ছিল অমানবিক, নিষ্ঠুর ও দানবীয়:

আমি অত্যন্ত দুঃখের সঙ্গে বলছি, আন্দোলন থামানোর জন্য যে পদক্ষেপগুলো নেয়া হয়েছে তা অমানবিক, নিষ্ঠুর দানবীয় আমি ধরে নিয়েছিলাম এখানে একটি মেডিকেল টিম থাকবে তারা নিয়মিত তাদের চিকিৎসা দিবে এখানে মেডিকেল টিম না থাকাতে আমি কষ্ট পেয়েছি

এর আগে শিক্ষার্থীদের সব অভিযোগ দাবি শোনার পর . জাফর ইকবাল বলেন, ‘তোমরা আমাকে গণমাধ্যমের সামনে কথা দিয়েছ, অনশন ভাঙবে তোমাদের জীবন অনেক মূল্যবান একজন মানুষের জন্য তোমরা জীবন দিয়ে দেবে, এটা মানা যায় না গ্রেপ্তার সাবেক পাঁচ শিক্ষার্থীর বিষয়ে কথা হয়েছে যেহেতু মামলা করা হয়ে গেছে, তাদের তো আদালতে তোলা হবে আশ্বাস পেয়েছি ছাত্রদের জামিন দেওয়া হবে

৩৪ ভিসির একসঙ্গে পদত্যাগ দেখার অনেক শখ:

শাহজালাল বিজ্ঞান প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ পদত্যাগ করলে দেশের অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩৪ জন ভিসি একসঙ্গে পদত্যাগ করার যে খবর ছড়িয়েছিল তা নিয়ে এবার মন্তব্য করলেন . মুহম্মদ জাফর ইকবাল

তিনি বলেছেন, উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদের পদত্যাগ করলে আমাদের দেশের ৩৪ জন ভিসি একসঙ্গে পদত্যাগ করবে বলেছিলেন সেটা চোখে দেখার খুবই শখ ছিল জানিনা দেখে যেতে পারি কিনা! আমাদের দেশে এমন ভিসি আছে, যার আদর্শ অনেক বেশি, যার জন্য অন্যরাও পদত্যাগ করবেন কিন্তু আমার ধারণা সেই শখ সহজে মিটবে না আর এই ৩৪ ভিসির ঘুম নষ্ট হয়ে গেছেবুধবার (২৬ জানুয়ারি) ভোরে ঢাকা থেকে সস্ত্রীক ক্যাম্পাসে এসে এমন মন্তব্য করেন . মুহম্মদ জাফর ইকবাল

এই আন্দোলনে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে একটা মডিফিকেশন হয়েছে:

তিনি আরও বলেন,এই আন্দোলনের ফলে দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে একটা মডিফিকেশন হয়েছে এটা নতুন করে বিশ্লেষণ করতে হবে যাকে ভিসি হিসেবে পাঠানো হয়েছে তিনি কি ভিসি হওয়ার যোগ্য কিনা আমি অনেক কিছু জানি কিন্তু নিজেদের দুর্বলতা বলতে ভালো লাগে না তোমরা যা করেছো সেটার কোনো তুলনা নাই যে আন্দোলনটা তৈরি করেছো দেশের প্রত্যেকটা ইয়ং ছেলেমেয়ে তোমাদের সঙ্গে আছে অনেক বড় বড় মানুষ যোগাযোগ করেছেন সেজন্য আমি এখানে আসলাম

এর আগে ঢাকা থেকে রওনা দিয়ে বুধবার ভোর চারটায় ক্যাম্পাসে পৌঁছান মুহম্মদ জাফর ইকবাল এবং তার স্ত্রী ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক অধ্যাপক . ইয়াসমিন হক সেখানে তাদের সঙ্গে দুই ঘণ্টার বেশি সময় আলোচনার পর অনশন ভাঙতে রাজি হন শিক্ষার্থীরা তবে উপাচার্য অধ্যাপক মো. ফরিদ উদ্দিন আহমেদের পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন তারা

অনশনরত শিক্ষার্থীদের চিকিৎসা বন্ধ রাখার বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে এই অধ্যাপক বলেন, ‘আমি শুনে অবাক হয়ে গেলাম যে শিক্ষার্থীরা নিজেরাই ক্যানোলা ঢুকিয়ে স্যালাইন দিচ্ছে এখানে যদি এত খারাপ অবস্থা হয়, তাহলে বাকি ২০ জনের কি অবস্থা তাদের সাহায্য করা যাবে না, এর চেয়ে বড় অমানবিক কাজ হতে পারে না

. জাফর ইকবাল বলেন, আমি এখানে আসতে চাইছিলাম না কারণ যদি তোমরা আমরা কথা না শুন তাই! তবে আমার ছেলে-মেয়েদের উপর আমার বিশ্বাস ছিল, তাই এসেছি আমি সংকল্প করে এসেছি তোমাদের অনশন ভাঙিয়ে তারপর আমি সিলেট ছাড়বো আমি চাই তোমরা আন্দোলন চালিয়ে যাও, তবে অনশন ভেঙে আন্দোলন করো আন্দোলন আর অনশন ভিন্ন জিনিস!

যে হামলা করেছে তাকে আমি মানুষ বলতে চাই না, সে দানব:

আন্দোলনে তাদের যারা অর্থ দিয়ে সাহায্য করেছে সেই সব মানুষদেরকে পুলিশ হাজতে রেখেছে, এটা নিন্দনীয় এই ব্যাপারগুলো অবশ্যই যাতে বন্ধ করা হয় তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে কারো নাম ছাড়া, যখন প্রয়োজন হবে তখন নাম ঢুকানো হবে আমি আশা করছি, এই জিনিসগুলো অবিলম্বে বন্ধ করা হবে

তিনি বলেন, এখানে আসার আগে সরকারের উচ্চ মহল থেকে আমার সাথে কথা বলা হয়েছে তাদের সঙ্গে কথা বলে আমি এখানে এসেছি আমাকে যারা যে কথা দিয়ে এখানে পাঠিয়েছেন তা যেন তারা রক্ষা করেন আমার আর আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের মধ্যে কোনো পার্থক্য নাই কাজেই আমাকে যে কথা দিয়েছেন তা যদি রক্ষা করা না হয়, তাহলে ছাত্রদের সাথে নয়, আমার এদেশের প্রগতিশীল মানুষদের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করা হয়েছে ধরে নিবো

. জাফর ইকবাল আরও বলেন, যদি কথা না রাখা হয় তাহলে অবশ্যই আমার ভূমিকা থাকবে আমার কাছে তারা এসেছেন আমি যাইনি সুতরাং আমি অনশনের হাত থেকে রক্ষা করে কথা রেখেছি আপনারাও কথা রাখবেন আশা করছি আর পুলিশ এদের উপর নিমর্মভাবে হামলা করেছে তাই তারা ক্ষুব্ধ হয়েছে এবং শিক্ষার্থীদের দাবিগুলো যৌক্তিক দাবি যে হামলা করেছে তাকে আমি মানুষ বলতে চাই না, সে দানব তার জন্য শিক্ষার্থীদের মরার কোনো দরকার নেই

অধ্যাপক . ইয়াসমিন হক বলেন, যখন পুলিশ হামলা করেছে তখন শিক্ষকদের ঝাঁপিয়ে পড়ার কথা ছিল বিভিন্ন সময় আন্দোলনে আমরা সামনে ছিলাম, সামনে দাঁড়িয়ে আন্দোলন থামানো হয়েছে পুলিশের সামনে দাঁড়ালে পুলিশ কিছুই করবে না, কারণ আমি একজন শিক্ষক ওই ঘটনায় শিক্ষকরা প্রতিবাদ পর্যন্ত করেনি শিক্ষার্থীরা তোমরা শিক্ষক হবে, তোমরা এমন মেরুদন্ডহীন হও না

ভিসি পদত্যাগ না করা পর্যন্ত আন্দোলন:

এদিকে অনশন থেকে উঠে আসা শিক্ষার্থী জাহিদুল ইসলাম অপূর্ব বলেন, আমরা জাফর ইকবাল স্যারের উপর বিশ্বাস আস্থা রেখে অনশন থেকে সরে এসেছি উনি আমাদের কথা দিয়েছেন আমাদের দাবিগুলো মেনে নিবেন আমাদের বিশ্বাস আছে কিন্তু ভিসি পদত্যাগ না করা পর্যন্ত আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাবো এবং পরবর্তী কর্মসূচি কি হবে আমরা তা আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নিবো

এদিকে,শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের বিষয়ে . মুহাম্মদ জাফর ইকবাল বলেছেন, শিক্ষার্থীদের আন্দোলন যৌক্তিক সরকারের কাছে আন্দোলনের সঠিক তথ্য নেই তিনি সরকারের কাছে তাদের প্রকৃত তথ্য তুলে ধরবেন বলেও জানান সময় ইয়াসমিন হক বলেন, ‘ঢাকা থেকে গ্রেপ্তার শিক্ষার্থীদেরকে দ্রুত ছেড়ে দেওয়া হবে তিনি আরও বলেন, ‘কোনো ব্যক্তি ভিসি থাকার পর যখন দ্বিতীয়বার থেকে যেতে চায় তখন ভালোভাবে যাচাই করে দেওয়া উচিত তাহলে এমন ব্যক্তি আসবে না আবার উনাকে ভিসি বানানোতে ছেলেমেয়েরা হতাশ হয়েছে তিন বছরের ক্ষোভের বিস্ফোরণ ঘটেছে

উল্লেখ্য, গত ১৩ জানুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয়টির বেগম সিরাজুন্নেসা চৌধুরী হলের প্রাধ্যক্ষের বিরুদ্ধে অসদাচরণসহ বিভিন্ন অভিযোগ তুলে তার পদত্যাগসহ তিন দফা দাবিতে আন্দোলন শুরু করেন হলের কয়েকশ ছাত্রী পরে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর ছাত্রলীগ হামলা চালায় ১৬ জানুয়ারী পুলিশ শিক্ষার্থীদেরকে লাঠিপেটা, গুলি ও সাউন্ড গ্রেনেট নিক্ষেপ করে পরে আন্দোলনটি উপাচার্য  ফরিদ উদ্দিন আহমেদের পদত্যাগের এক দফা দাবিতে রূপ নেয়

‘শিক্ষার্থীদের ১০ হাজার টাকা দিচ্ছি, এবার আমাকে অ্যারেস্ট করুক’:

বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল শিক্ষার্থীদের ফান্ডে ১০ টাকা হাজার টাকা দিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আন্দোলনের ফান্ডে টাকাটা দিচ্ছি, এবার আমাকে অ্যারেস্ট করুক

জাফর ইকবাল বলেন, আমি আবেগি মানুষ চোখের জল আটকাতে পারি না আমি বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী স্মারকে লিখে ১০ হাজার টাকা পেয়েছি এটা এখন তোমাদের দিচ্ছি এখন সিআইডি দেখি আমারে অ্যারেস্ট করে কিনা আমারে অ্যারেস্ট করে নিয়ে যাক পুলিশের উদ্দেশে এই লেখক বলেন, ছাত্রদের গায়ে হাত তুলবেন না অলরেডি হাত তুলে আপনারা অনেক বড় ক্ষতি করে ফেলেছেন আর করবেন না তাদের হয়রানি করবেন না

এদিকে গত ১৯শে জানুয়ারি বুধবার থেকে ভিসির পদত্যাগের দাবিতে আমরণ অনশন শুরু করে শিক্ষার্থীরা কয়েকদফায় সরকার বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের পক্ষ থেকে অনশন ভাঙ্গানোর চেষ্টা করা হয় কিন্তু ভিসির পদত্যাগের আগ পর্যন্ত অনশন চলবে বলে তাদেরকে জানিয়ে দেয় কিন্তু বুধবার ভোর রাত ৪টায় জাফর ইকবাল দম্পতি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে আসেন এবং শিক্ষার্থীদের অনশন ভাঙার জন্য অনুরোধ করেন পরবর্তীতে শিক্ষার্থীরা তাদের ডাকে সাড়া দিয়ে বুধবার সকাল ১০টা ২৫ মিনিটে অনশন ভাঙেন

ফিরে দেখা:

উল্লেখ্য, শাবি শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের শুরু ১৩ জানুয়ারি রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের বেগম সিরাজুন্নেসা চৌধুরী হলের প্রভোষ্ট জাফরিন আহমেদ লিজার বিরুদ্ধে অসদাচরণের অভিযোগ তুলে তার পদত্যাগসহ তিন দফা দাবিতে আন্দোলন শুরু করেন হলের কয়েকশ ছাত্রী ১৬ জানুয়ারি বিকেলে শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিটি ভবনে  ভিসিকে অবরুদ্ধ করে রাখে।দুঘন্টাপর পুলিশ ক্যাম্পাসে ঢুকে শিক্ষার্থীদের লাঠিপেটা, গুলি সাউন্ড গ্রেনেড ছুড়ে ভিসিকে মুক্ত করে বাসভবনে পৌছে দেন তখন ৩০/৩৫ জন শিক্ষার্থী গুলি ও লাঠি পেটায় আহত হন।

রাতে পুলিশ ৩০০ জনকে আসামি করে শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে মামলা করে সেদিন রাতে বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করে শিক্ষার্থীদের হল ছাড়ার নির্দেশ দেয় কর্তৃপক্ষ কিন্তু শিক্ষার্থীরা তা উপেক্ষা করে হলে অবস্হান করে এবং উপাচার্যের বাসভবনের সামনে অবস্থান নিয়ে তার পদত্যাগ দাবিতে আন্দোলনে নামেনবাসভবনের সামনে অবস্থানের কারণে গত ১৭ জানুয়ারি থেকেই অবরুদ্ধ অবস্থায় ভিসি অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমদ ১৯ জানুয়ারি দুপুর থেকে ভিসির  পদত্যাগ না করা পর্যন্ত আমরণ অনশনে বসেন ২৪ শিক্ষার্থী তাদের মধ্যে একজনের বাবা হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ায় তিনি অনশন শুরুর পরদিনই বাড়ি চলে যান ২৩ জানুয়ারি আরও পাঁচজন শিক্ষার্থী অনশনে যোগ দেন

এর মাঝে ভিসি ইস্যুতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সাথে একাত্বতা প্রকাশ করে ক্যাম্পাসে গিয়ে কথা বলেন আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেলসহ নেতৃবৃন্দ।২২ জানুয়ারি গভীর রাতে ভার্চুয়ালি বৈঠক করেন শিক্ষামন্ত্রী .দিপুমনির সাথেতিনি আলোচনা করার জন্য তাদের ঢাকায় যাওয়ার আহ্বান জানান। পরে আন্দোলনকারীরা তাদের সহপাঠিদের অনশনে রেখে ঢাকায় যেতে অপারগতা প্রকাশ করে শিক্ষামন্ত্রীকে সিলেট আসার অনুরোধ জানান।বৈঠকে ভিসির পদত্যাগের বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত না এলেও দাবিগুলো লিখিতভাবে জমা দেয়ার পরামর্শ দেন তিনি তবে বৈঠকের পর শিক্ষার্থীরা জানান, তাদের মূল দাবি ভিসি ফরিদ উদ্দিন আহমদের পদত্যাগ এই দাবি না মানা পর্যন্ত তারা আন্দোলন থেকে সরবেন না ২৩ জানুয়ারি দুপুরের পর শিক্ষার্থীদের আবার শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক হওয়ার কথা ছিল তবে তা না হওয়ায় তারা ভিসিকে অবরুদ্ধের ঘোষণা দেন মঙ্গলবার রাত ৮টা পর্যন্ত অনশনকারীদের মধ্যে ২০ জন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বাকি ৮জন অনশনকারী ভিসির বাসভবনের সামনে অবস্থান করছিলেন

আরও পড়ুন
শিক্ষা বিভাগের সর্বাধিক পঠিত