ঢাকা, ০৩ আগস্ট, ২০২০
SylhetNews24.com
শিরোনাম:
সব মানুষের মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক, ১১ নির্দেশনা পবিত্র হজ ৩০ জুলাই চুক্তিতে থাকা বিতর্কিত স্বাস্থ্যের ডিজি ডা. আবুল কালামের পদত্যাগ ১ আগস্ট পবিত্র ঈদুল আজহা

হবিগঞ্জে জাতীয় নজরুল সম্মেলন শেষ:জাতির পিতাও নজরুলকে ধারণ করতেন

হবিগঞ্জ সংবাদদাতা

প্রকাশিত: ৪ জানুয়ারি ২০২০  

হবিগঞ্জে পাচঁদিন দিনব্যাপী জাতীয় নজরুল সম্মেলন দেশ বরেণ্য শিল্পীদের কণ্ঠে নজরুলের গান, ওয়ার্দা রিহাবের নেতৃত্বে নৃত্য, কবি রেজাউদ্দিন স্টালিন এর কবিতা পাঠ, নজরুলের গানের প্রশিক্ষক সৃষ্টি আর বিদগ্ধ জনের আলোচনার মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে।

শীতের মধ্যে হবিগঞ্জ শহরে এই কদিন ছিল কবি নজরুলের আবহ। শিক্ষার্থী থেকে শুরু করে সাধারণ লোকজন উৎসাহ নিয়ে উপভোগ করে এই আয়োজন। আয়োজকদের মাঝেও ছিল তৃপ্তি।

গত শুক্রবার রাতে হবিগঞ্জ শহরের নিমতলায় শেষ দিন নজরুল সঙ্গীত পরিবেশন করেন জোসেফ কমল রড্রিক্স, সালাউদ্দিন আহমেদ, শরমিন জাহানসহ ঢাকার ও স্থানীয় নজরুল সঙ্গীত শিল্পীরা। কলকাতা থেকে আসা সোমঋতা মল্লিকও আনন্দ দেন সবাইকে। শেষে কবি নজরুল ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক মো. আব্দুর রাজ্জাক ভূইয়াও পরিবেশন ২টি গান। ওয়ার্দ রিহাবের নেতৃত্বে নৃত্য সবাইকে মুগ্ধ করে। হাজার হাজার দর্শক আনন্দ পান কবি রেজাউদ্দিন স্টালিন এর কবিতা পাঠ শুনে।

গত ৩১ ডিসেম্বর প্রধান অতিথি হিসেবে হবিগঞ্জে জাতীয় নজরুল সম্মেলনের উদ্বোধন করেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ এমপি। প্রতিদিনই নজরুল সঙ্গীত এর পাশাপাশি জেলার দুটি সরকারি কলেজে আয়োজন করা হয়েছিল আলোচনাসভা। সরকারি বৃন্দাবন কলেজে ‘নজরুল, বাঙালি ও বঙ্গবন্ধু’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. ড. বিশ্বজিৎ ঘোষ।

উদ্বোধনী বক্তব্যে প্রধান অতিথি সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী বলেন, নজরুল ইসলামের জন্ম না হলে বাংলা সাহিত্যের কি হতো জানা নেই। নজরুলকে ধারণ করতেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানও। বাঙালির আবহমান ঐতিহ্য ও সংস্কৃতিকে ফুটিয়ে তুলেছেন তিনি। নজরুল, বাঙালি এবং বাংলাদেশ এক সূত্রে গাঁথা। 

সরকারি মহিলা কলেজে ‘বাঙালির জাতীয় সংস্কৃতি ও সাহিতে জাতীয় কবির প্রভাব’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন নজরুল গবেষক ও অতিরিক্ত সচিব এ এফ এম হায়াতুল্লাহ।

হবিগঞ্জে ৫ দিনব্যাপী জাতীয় নজরুল সম্মেলনে জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে জেলার ৫০ জন নজরুল সঙ্গীত শিল্পীকে প্রশিক্ষকের প্রশিক্ষণ প্রধান করা হয়। দুই কৃতি প্রশিক্ষক জোসেফ কমল রড্রিক্স ও সালাউদ্দিন আহমেদ বলেন, এখানকার লোকজন নজরুল সঙ্গীত আগ্রহ নিয়ে শুনতে চায়। যে ৫০ জন প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেছেন তাদের মাঝে ২০/২৫ জন আছেন খুবই ভালো। তাদের মাধ্যমে সমগ্র জেলায় শত শত নজরুল সঙ্গীত শিল্পী সৃষ্টি হবে বলে তারা আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

তারা আরো জানান, জাতীয়ভাবে নজরুলকে নিয়ে অনেক কাজ হয়েছে। আমরা শুদ্ধ স্মরলিপি তৈরি করেছি। কিন্তু মফস্বল এলাকায় এখনও শুদ্ধভাবে নজরুল চর্চা হচ্ছে না বলেই নজরুল ইনস্টিটিউট থেকে এই উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। আমরা ইতোমধ্যে ১৯টি জেলায় জাতীয় সম্মেলন করেছি। পর্যায়ক্রমে সকল জেলায় এই সম্মেলন হবে।

তারা বলেন, এখনও মানুষ লোকজ সঙ্গীতের পরই নজরুল সঙ্গীত সবছেয়ে বেশী পছন্দ করে। বিদেশের মাটিতে গেলেও একই দৃশ্য দেখা যায়। আর ভালো শিল্পী সৃষ্টি হতে হলে নিয়ম মেনে চর্চার বিকল্প নেই। রাস্তা থেকে ধরে এনে শিল্পী সৃষ্টি হবে না। এর জন্য শুদ্ধভাবে নিয়মিত অনুশীলনের বিকল্প নেই।

কবি রেজাউদ্দিন স্টালিন বলেন, নজরুল চর্চা ছাড়া আমাদের সাহিত্য অপূর্ণাঙ্গ থেকে যাবে। তিনি নজরুলকে নিয়ে তার রচিত ‘আপনি মৌন হবার পর’ কবিতা পাঠ করেন। এই কবিতায় কবির শেষ জীবনের মৌনতাকে পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ প্রতিবাদ হিসাবে উল্লেখ করেন।

হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান, হবিগঞ্জে জাতীয় নজরুল সম্মেলন আয়োজন করার জন্য কবি নজরুল ইনস্টিটিউটকে ধন্যবাদ জানান। এই সম্মেলন হবিগঞ্জে কবি নজরুলকে নিয়ে নতুন আগ্রহ সৃষ্টি করবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

আরও পড়ুন
সাহিত্য-সংস্কৃতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত