ঢাকা, ২৪ নভেম্বর, ২০২০
SylhetNews24.com
শিরোনাম:
করোনায় আরো ৩২ জনের মৃত্যু ধর্ম প্রতিমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলেন ফরিদুল হক খান ভারতীয় ‘ক্রাইম পেট্রোল’ দেখে ভাই-ভাবিসহ ৪ জনকে হত্যা সুনামগঞ্জ পৌর পানি শোধনাগার উদ্বোধন করলেন পরিকল্পনামন্ত্রী জগন্নাথপুর বিবি এডুকেশন ট্রাস্টের বিরুদ্ধে অপপ্রচারে লিপ্ত করিম

সিলেটে করোনা সার্টিফিকেটের ভোগান্তি,যাত্রা বাতিল হচ্ছে প্রবাসীদের

খালেদ আহমদ*

প্রকাশিত: ২৬ জুলাই ২০২০  

প্রবাসী অধ্যুষিত সিলেট বিভাগের বিদেশে ফেরত যাত্রীদের করোনা সার্টিফিকেটের জন্য নমুনা দিতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন।
করোনা সার্টিফিকেট বাধ্যতামূলক করার পর রেজিস্ট্রেশন, নমুনা গ্রহণ ও সার্টিফিকেট নিতে নিয়মের বেড়াজালে যাত্রার আগে কাঠখড় পুড়িয়ে টানা তিন দিন ছুটাছুটি করতে হচ্ছে বিদেশযাত্রীকে। এছাড়া রিপোর্ট পজেটিভ না নেগেটিভ আসবে এ উদ্বেগ উৎকন্টায় ভুগছেন প্রবাসীরা। 

সরকার বিদেশগামীদের জন্য কোভিড নেগেটিভ সনদ বাধ্যতামূলক করলেও সব জেলায় করোনা পরীক্ষার ব্যবস্থা না থাকায় ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে প্রত্যন্ত অঞ্চলের প্রবাসীদের। শেষ মুহূর্তে টিকিট যোগাড় হলেও সময়মতো করোনা পরীক্ষা করতে না পারায় যাত্রা বাতিল হচ্ছে অনেকের।

সারা দেশে মাত্র ১৬টি প্রতিষ্ঠান কোভিড টেস্টের জন্য নির্দিষ্ট করায় ঢাকার নমুনা পরীক্ষা কেন্দ্রের ওপর চাপ পড়ছে। সার্বিক প্রক্রিয়ায় অব্যবস্থাপনার অভিযোগ তুলে টেস্টের সুবিধা বাড়ানো ও ফি কমানোর দাবি জানিয়েছেন প্রবাসীরা।

বিদেশযাত্রীদের করোনা শনাক্তকরণ পরীক্ষার জন্য সরকারীভাবে একমাত্র সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাবকে নিদিষ্ট করে দেয়া হয়েছে। সিলেট ছাড়াও বিভাগের অপর তিন জেলা সুনামগজ্ঞ, হবিগজ্ঞ ও মৌলভীবাজারের প্রবাসীদেরও সিলেটে আসতে হচ্ছে এই পরীক্ষার জন্য।

বিমানের টিকেট কনফার্ম করার পর তিন দিনের আনুষ্ঠানিকতা শেষে তারা হাতে পান সার্টিফিকেট। তবে এরই মধ্যে অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়ছেন। কারণ বন্যার মধ্যেও তারা রেজিস্ট্রেশন, নমুনা গ্রহণ ও সার্টিফিকেট নিতে আসতে হচ্ছে সিলেটে। সবখানেই নিজেরাই উপস্থিত থাকতে হচ্ছে। অবিলম্বে এই প্রক্রিয়াটিকে সহজ করার দাবি জানিয়েছেন প্রবাসীরা।
বিদেশযাত্রী প্রবাসীদের করোনা সার্টিফিকেট বাধ্যতামূলক করার পর সিলেটে প্রবাসীদের নমুনা গ্রহণের পর সার্টিফিকেট প্রদানের প্রক্রিয়া শুরু করা হয়। গত বুধবার থেকে শুরু হয়েছে তাদের নমুনা সংগ্রহ। সিলেট বিভাগের বিদেশযাত্রীদের করোনা শনাক্তকরণ পরীক্ষার একমাত্র স্থান হচ্ছে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাব। গত বৃহস্পতিবার থেকে ওই ল্যাবে পরীক্ষা শুরু হয়েছে।
ওসমানী হাসপাতালের ল্যাবে পরীক্ষা হলেও প্রবাসীদের নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে নগরীর উপশহর সংলগ্ন আবুল মাল আবদুল মুহিত ক্রীড়া কমপ্লেক্সে স্থাপিত বুথে। রেজিস্ট্রেশন করতে হয় চৌহাট্টার সিলেট জেলা সিভিল সার্জনের কার্যালয়ে। রিপোর্টও প্রদান করা হচ্ছে এই কার্যালয় থেকে। রেজিস্ট্রেশন, নমুনা প্রদান ও রিপোর্ট গ্রহণের জন্য পরপর তিনদিন ব্যয় করতে হচ্ছে বিদেশযাত্রীদের। এ কারণে ভোগান্তি বেড়েছে। অনেক বৃদ্ধ, বৃদ্ধা যাত্রীকেও বাধ্য হয়ে আসতে হচ্ছে। বর্তমানে সুনামগজ্ঞ জেলা পরো বন্যা কবলিত। তারপরও অনেকেই পানি ডিঙ্গিয়ে তিনদিনই নির্ধারিত সময়ের আগে এসে উপস্থিত হতে হচ্ছে।

ফ্লাইট অনুসারে আগামী ১৫ দিনের নমুনা সংগ্রহের শিডিউল প্রকাশ করেছে সিভিল সার্জনের কার্যালয়। শিডিউল বিজ্ঞপ্তিতে সিভিল সার্জন জানিয়েছেন ‘বিদেশগামীরা করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা প্রদানের পর থেকে ফ্লাইটের পূর্ব পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিধি অনুযায়ী কোয়ারেন্টিনে থাকবেন।’ কিন্তু কোনোভাবে সেটি মানা সম্ভব হচ্ছে না প্রবাসীদের। 
কারণ বিদেশ যাওয়ার মাত্র ৭২ ঘন্টা আগে তাদের করোনা টেস্ট করাতে হচ্ছে। এ কারণে তারা তিন দিনই কোয়ারেন্টিন ভেঙে সার্টিফিকেট নেয়ার জন্য সিলেটে আসা যাওয়া করতে হচ্ছে। 

যুক্তরাজ্য প্রবাসী বিয়ানীবাজারের বাসিন্দা মোহাম্দ আব্দুল কুদদুস বলেন, আমি পরিবারের পাচঁ জনকে নিয়ে লন্ডনে যাব। সবাইকে নিয়ে টানা ৩ দিন সিলেটে আসতে হবে। আসা যাওয়া করে কি কোয়ারেন্টিন মানা সম্ভব। আমরা দু:চিন্তায় আছি কেউ অসুস্হ হয়ে পড়ে কিনা। 

আবার অনেকেই আরো দূরবর্তী স্থান থেকে আসতে হচ্ছে। ফলে ভোগান্তির তো শেষ নেই। বরং সময় নিয়ে যদি নিজ এলাকা থেকে নমুনা সংগ্রহ ও সার্টিফিকেট বিতরণের উদ্যোগ নেয়া হতো তাহলে ভোগান্তি কম হতো।

সুনামগজ্ঞের দিরাইয়ের প্রবাসী ওয়ালিদুর রহমান সুহেল জানান, তার পরিবার নিয়ে বাড়ি থেকে পানি ডিঙিয়ে শহরে আসতে হচ্ছে। প্রথম দিন এসেছিলেন রেজিস্ট্রেশন করতে। এর পরের দিন নমুনা দিতে এবং সর্বশেষ রিপোর্ট নিতে। সুতরাং প্রতিদিনই ৬০/৭০ কিলোমিটার এলাকা পাড়ি দিয়ে তাদের শহরে আসতে হচ্ছে। এতে করে নমুনা প্রদানের আগেই অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়েন। বিষয়টি আরো সহজ করার দাবি করেন তিনি। 

জানাযায়, লোকবল সংকটের কারণে প্রক্রিয়াটিকে দ্রুত করা সম্ভব হচ্ছে না। এদিকে, ওসমানী মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাবে নমুনা পরীক্ষার পর প্রবাসীদের করোনা রিপোর্ট পজেটিভ এসেছে। প্রবাসীরা জানিয়েছেন, রেজিস্ট্রেশন, নমুনা দিতে এসে ভীড়ের কারনে অনেকেই সংক্রমণ হতে পারেন।

বিদেশযাত্রীদের মধ্যে ভীতি ও দু:শ্চিন্তা দেখা দিয়েছে। কারন অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে উচ্চমূল্যে তারা বিদেশ ফিরে যাওয়ার টিকেট সংগ্রহ করেছেন । কিন্তু ফ্লাইটের ৭২ ঘন্টা আগে করোনাভাইরাস সনাক্তের জন্য নমুনা পরীক্ষায় দিয়ে হতাশ হয়েছেন অনেকে । কোন উপসর্গ না থাকলেও রিপোর্ট দেখে তাদের চোখ অন্ধকার। পরীক্ষায় তাদের করোনা পজেটিভ এসেছে। অর্থাৎ তারা করোনা আক্রান্ত।

এ অবস্থায় নির্ধারিত ফ্লাইটে বিদেশ ফিরে যাওয়া হচ্ছে না তাদের। টিকেট বাতিল করে থাকতে হচ্ছে আইসোলেশনে। সিলেটে গত বৃহস্পতিবার রাতে ৯১ জন বিদেশগামী যাত্রীর নমুনা পরীক্ষায় ২৪ জনেরই পজেটিভ রিপোর্ট এসেছে বলে জানিয়েছেন ওসমানী হাসপাতালের উপ-পরিচালক হিমাংশু লাল রায়।

এদিকে, সিলেটের সিভিল সার্জন ডা. প্রেমানন্দ মণ্ডল বলেন, প্রবাসীদের যেসব সমস্যা হচ্ছে সেগুলো চিহ্নিত করে সমাধান করা হবে। তবে দালাল কিংবা কারো দ্বারা কেউ যাতে প্রতারিত না হন সে কারণে তারা নিজেরা আসতে হচ্ছে। ওসমানী মেডিকেলের ল্যাবে যেহেতু বিদেশযাত্রী ছাড়া সাধারণ রোগীদেরও করোনা পরীক্ষা হচ্ছে তাই নমুনা সংগ্রহের দিনই তাদের রিপোর্ট দেয়া যাচ্ছে না। তবে একদিন পরই তাদের রিপোর্ট দিয়ে দেয়া হচ্ছে। এক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি অগ্রাধিকার দেয়া হচ্ছে প্রবাসীদের।


 

আরও পড়ুন
জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত