ঢাকা, ১২ জুলাই, ২০২০
SylhetNews24.com
শিরোনাম:
দেশে করোনা মোকাবিলার পরিস্থিতি দেখে হতাশ চীনা বিশেষজ্ঞ দল করোনার মধ্যেও উন্নয়নের ধারা বজায় রাখতে প্রচেষ্টা চালাচ্ছে সরকার সিলেট বিভাগে নতুন আরও ১৪২ জনের করোনা শনাক্ত,সিলেটেই ৭৮ সিলেটে করোনা রোগী বাড়ছেই, হাসপাতালে `ঠাঁই নাই, ঠাঁই নাই` অবস্হা

সিলেটেও সম্পদ মানব পাচারের অভিযোগে কুয়েতে আটক এমপি পাপুলর  

বিশেষ প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ২৪ জুন ২০২০  

সিলেটেও কোটি কোটি টাকার সম্পদ রয়েছে মানব ও অর্থপাচারে অভিযুক্ত কুয়েতের জেলে বন্দি লক্ষীপুর-২ আসনের স্বতন্ত্র এমপি কাজী শহিদ ইসলাম পাপুল ও তার স্ত্রীর নামে। 

সিলেটের গণমাধ্যমে এই তথ্য প্রকাশিত হওয়ায় তোলপাড় শুরু হয়েছে। এমপি পাপুল ও তার স্ত্রীর নামে কেনা অন্তত: ২৫ কোটি টাকার একটি সম্পদের তথ্য পাওয়া গেছে। ধারনা করা হচ্ছে সিলেটে তাদের আরো সম্পদ রয়েছে।

সিলেট নগরীর ব্যস্ততম বন্দরবাজার এলাকা থেকে সামান্য দূরে নাইওরপুল পয়েন্টের  মোড়ে পাপুল ও তার স্ত্রী নারী সংসদ সদস্য সেলিনা ইসলামের নামে প্রায় অর্ধ একরের  মূল্যবান বানিজ্যিক  প্লট কিনে রেখেছেন। প্রায় ৮ বছর আগে কেনা প্রায় ২৫ কোটি টাকার মূল্যের ৪৯ ডেসিমেল জায়গার উপর তাদের নামেই সাইনবোর্ড ঝুলছে।

এনিয়ে সিলেটে তোলপাড় চলছে, চলছে নানা কানাঘুষা।ধারনা করা হচ্ছে সিলেটে তার আদম ব্যবসার কানেকশনের সূত্রেই এই সম্পদ কেনা হয়েছে। অনুসন্ধান করলে সিলেটে তার আদম ব্যবসার কানেকশনও খোঁজে পাওয়া যাবে।

ক্রয়কৃত ওই জায়গাটি ছিল সিলেটের বিশিষ্ট ব্যবসায়ি আতাউল্লাহ সাকেরের। জায়গাতে এক সময় সিএনজি পেট্রোলপাম্প চালু করেছিলেন সাকের।কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ নাইওরপুল মোড়ে এই পাম্পটি বার বার চেষ্টা করেও সফলভাবে চালু করতে পারেননি আতাউল্লাহ সাকের।কিছুদিন সেটি চালু থাকার পর বন্ধ করে দেন। দীর্ঘদিন থেকে বেড়া দেয়া পাম্প ও জায়গাটি পরিত্যক্ত অবস্হায় রয়েছে।

২০১২ সালে পাপুল নিজের ও তার স্ত্রীর নামে আতাউল্লাহ সাকেরের কাছ থেকে এই ৪৯ ডেসিমেল ভুমি ক্রয় করেন বলে জানা যায়। প্রায় আট বছর আগে কেনা হলেও জায়গাটি  এখনো পরিত্যাক্ত অবস্থায় রয়েছে। তবে তাদের নামে সাইনবোর্ড ঝুলছে।

ভূমি বিক্রেতা সাকের জানান, এমপি পাপুল নিজের ও তার স্ত্রীর নামে ২০১২ সালে জায়গাটি কিনে নেন। কত টাকায় বিক্রি করেছেন তা এই মূহুর্তে স্মরণ মনে করতে পারছেন না তিনি।
 
তবে স্থানীয় বাসিন্দা, ব্যবসায়ী ফয়েজ আহমদ দৌলত বলেন, জায়গাটি ১২/১৩ কোটি টাকায় বিক্রি হয়েছে বলে শুনেছি। জায়গার বর্তমান বাজারমূল্য ডেসিমেল প্রতি কম হলেও ৫০ লাখ টাকা হবে। সেই হিসেবে ৪৯ ডিসিমেল জায়গার মূল্য প্রায় ২৫ কোটি টাকা। আমরা জানতাম না সেই জায়গার মালিক কুয়েতে গ্রেফতার হওয়া শহিদুল ইসলাম পাপুলের। এখন শুনে অবাক হচ্ছি।-ছবি: সিলেটসান'র সৌজন্যে।

আরও পড়ুন
এক্সক্লুসিভ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত