ঢাকা, ২২ অক্টোবর, ২০১৯
SylhetNews24.com
শিরোনাম:
ব্রেকিং নিউজ--বরগুনায় রিফাত হত্যা মামলার প্রধান আসামি নয়ন বন্ড র‍্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত

প্রায় ৬ ঘণ্টা পর এফ আর টাওয়ারের আগুন নিয়ন্ত্রণে

অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ২৮ মার্চ ২০১৯  

রাজধানীর বনানীতে এফ আর টাওয়ারে আগুন লাগার পৌনে ৬ ঘণ্টা পর তা পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে এসেছে।

বৃহস্পতিবার দুপুর পৌনে ১টার দিকে আগুন লাগার পর সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে আগুন পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে আসে বলে ফায়ার সার্ভিসের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

ভয়াবহ এই অগ্নিকাণ্ডে এখন পর্যন্ত সাতজনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের নিয়ন্ত্রণ কক্ষের সহকারী কমিশনার সাইদুল ইসলাম। তবে ফায়ার সার্ভিসের নিয়ন্ত্রণ কক্ষ বলছে, অগ্নিকাণ্ডে পাঁচজন নিহতের বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

নিহতদের মধ্যে পাঁচজনের পরিচয় জানা গেছে। তারা হলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী আব্দুল্লাহ আল ফারুক তমাল (৩০), দিনাজপুর সদর উপজেলার বালুয়ারা গ্রামের প্রয়াত আবুল কাশেমের ছেলে আব্দুল্লাহ আল মামুন (৪০), বরিশাল সদরের উত্তর কোরাপাড়া গ্রামের প্রয়াত মোতাহার হোসেন সরদারের ছেলে মনির হোসেন সরদার, রাজধানীর গেণ্ডারিয়ার আলমগঞ্জ রোডের প্রয়াত মিজানুর রহমানের ছেলে মাকসুদুর রহমান ও শ্রীলংকার নাগরিক নিরেশ ভিগনে রাজা।

এদের মধ্যে তমাল ঢাবির ম্যানেজমেন্ট বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী। তিনি ই ইউ আর বিডি সলিউশন-এ সেলস ম্যানেজার হিসেবে কাজ করতেন। আগুনে তার শরীরের ৯০ শতাংশ পুড়ে যায়। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বার্ন ইউনিটে নেওয়ার পর তার মৃত্যু হয়।

রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে নেওয়ার পর মারা যান আব্দুল্লাহ আল মামুন, মনির হোসেন সরদার ও মাকসুদুর রহমান। এদের মধ্যে মামুন রাজধানীর কল্যাণপুরে থাকতেন। মনির থাকতেন গাজীপুরের টঙ্গির নিজ বাড়িতে।

এছাড়া নিহত শ্রীলংকার নাগরিক নিরেশ স্ক্যান ওয়েল লজিস্টিক বিডি-এর ইমপোর্ট ম্যানেজার ছিলেন। আগুন লাগার সময় তিনি ভবনটির ১০ তলায় অবস্থান করছিলেন। অগ্নিকাণ্ডের পর ভবন থেকে লাফিয়ে পড়ে গুরুতর আহত হন নিরেশ। কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে নেওয়ার আগেই তার মৃত্যু হয়।

বৃহস্পতিবার দুপুর পৌনে ১টার দিকে ভবনটিতে আগুন লাগে। ফায়ার সার্ভিসের ৯টি ইউনিট প্রথমে আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু করলেও পরে আরও ১২টি ইউনিট যোগ দেয়। সঙ্গে বিমানবাহিনীর হেলিকপ্টারও আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করে। এক পর্যায়ে অগ্নিনির্বাপনী কাজে যোগ দেয় সেনাবাহিনীও।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আগুন লাগার পর বহুতল ভবনটিতে আটকে পড়া অনেকে ভবনের কাঁচ ভেঙে দেয়াল বেয়ে নামার চেষ্টা করেন। এছাড়া অনেকে রশি দিয়ে নামতে গিয়ে আহত হন।

আরও পড়ুন
জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত