ঢাকা, ২০ জুন, ২০১৯
SylhetNews24.com
শিরোনাম:
খালেদা জিয়ার শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে ইইউ প্রতিনিধিদলের উদ্বেগ পাকিস্তানের সাবেক প্রেসিডেন্ট আসিফ জারদারি গ্রেফতার ৪০ লাখ ঘুষ: দুদক পরিচালক এনামুল বাসির সাময়িক বরখাস্ত ওসি মোয়াজ্জেমকে খুঁজেই পাচ্ছে না পুলিশ!

জিডিপি প্রবৃদ্ধি বেড়ে হবে ৮.১৩ শতাংশ: আইএমইডি প্রকল্পে ১৫ সমস্যা

প্রকাশিত: ১৯ মার্চ ২০১৯  

চলতি অর্থবছরের জন্য ১ লাখ ৬৫ হাজার কোটি টাকার সংশোধিত এডিপি (আরএডিপি) অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনেতিক পরিষদ (এনইসি)। 

মূল এডিপি থেকে বৈদেশিক সহায়তা অংশে ৯ হাজার কোটি টাকা কাঁটছাট করা হয়েছে। পাশাপাশি সরকারি তহবিলের অংশে এক হাজার কোটি টাকা বাড়িয়ে সংশোধিত এডিপির নতুন আকার নির্ধারণ করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৯ মার্চ) রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী ও এনইসি চেয়ারপারসন শেখ হাসিনা। সেখানে সংশোধিত নতুন এডিপির আকার নির্ধারণ করা হয়।

পরে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল ও পরিকল্পনামন্ত্রী এম, এ, মান্নান।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য (সিনিয়র সচিব) ড. শামসুল আলম, পরিকল্পনা সচিব নুরুল আমিন।

ব্রিফিংয়ে জানানো হয়,  চলতি অর্থবছর শেষে দেশের মোট দেশজ উৎপাদন প্রথমবারের মত ৮ শতাংশের ঘর ছাড়িয়ে যাবে বলে প্রাক্কলন করেছে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো। সেই সঙ্গে বাড়বে মানুষের মাথাপিছু আয়ও। 

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর হিসাব অনুযায়ী, ২০১৮-১৯ অর্থবছর শেষে জিডিপি প্রবৃদ্ধি হবে রেকর্ড ৮ দশমিক ১৩ শতাংশ এবং মানুষের মাথাপিছু আয় বেড়ে হবে ১ হাজার ৯০৯ ডলার।

গত অর্থবছর জিডিপি প্রবৃদ্ধি ছিল ৭ দশমিক ৮৬ শতাংশ। আর ওই সময় দেশের মানুষের মাথাপিছু আয় ছিল এক হাজার ৭৫১ ডলার।

অর্থমন্ত্রী ব্রিফিংয়ে বলেন, অর্থনীতির প্রত্যেকটা খাতেই আমাদের প্রবৃদ্ধি ভালো। আমাদের রফতানি বেড়েছে, বিনিয়োগ বেড়েছে। ম্যানুফ্যাকচারিং খাত বেড়েছে। মূল যেসব খাত- সবগুলোই আমাদের বেড়েছে। সেজন্যই জিডিপির প্রবৃদ্ধি ভালো।

ব্রিফিং এ পরিকল্পনামন্ত্রী জানান, প্রকল্পের তদারকি নিশ্চিত করতে বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগকে (আইএমইডি) শক্তিশালী করার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। এক্ষেত্রে, আইএমইডির বিভাগীয় অফিস স্থাপন, জনবল ও যানবাহন বৃদ্ধি, কারিগরি প্রকল্পের জন্য ইঞ্জিনিয়ারিং ল্যাব গঠন করার নির্দেশনা দিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রীর বরাত দিয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী আরো বলেন, প্রকল্প বাস্তবায়নে ফসলী জমি বা জলাধার ব্যবহার করা যাবে না। প্রকল্প সমাপ্ত হওয়ার তিন মাসের মধেই পিসিআর বা প্রকল্প সমাপ্ত প্রতিবেদন জমা দিতে হবে। প্রকল্প বাস্তবায়ন শেষে প্রকল্পের গাড়ী, অফিস ও অন্যান্য সরঞ্জাম যথাস্থানে জমা দিতে হবে। প্রকল্পের পরামর্শক নিয়োগের ক্ষেত্রে দেশেই যারা অবসরে গিয়েছেন তাদের মধ্য থেকে পরামর্শক নিয়োগে গুরুত্ব দিতে হবে।

এছাড়া, প্রকল্প পরিচালকদের প্রকল্প এলাকায় থাকতে হবে এবং একটি প্রকল্পের জন্য একজন প্রকল্প পরিচালক নিয়োগ করতে হবে। তবে বিশেষ ক্ষেত্রে কারিগরি লোক পাওয়া না গেলে সেক্ষেত্রে অনুমোদন সাপেক্ষে দুটি বা তার বেশি প্রকল্পে একজন পিডি থাকতে পারবেন। এনইসিতে আইএমইডি প্রকল্প বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে ১৫টি সমস্যা তুলে ধরেছেন বলে জানান পরিকল্পনামন্ত্রী। 

আরও পড়ুন
জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত