ঢাকা, ২৮ জানুয়ারি, ২০২১
SylhetNews24.com
শিরোনাম:
করোনার টিকা পেলেই সম্মুখসারির যোদ্ধাদের অগ্রাধিকার: প্রধানমন্ত্রী অনেকদূর এগিয়েছি সত্য,তবে যেতে হবে আরও বহুদূর:প্রধানমন্ত্রী সত্য বলায় হয়তো আমার চাকরিও থাকবে না:ওবায়দুল কাদেরের ভাই ভ্যাকসিন কবে আসবে সেটা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না: ভারতীয় হাইকমিশন টিকা নিয়ে সরকার ‘তেলেসমাতি’ খেলা শুরু করেছে:রিজভী ২৮ জন সিলেটিসহ মাত্র ৩৪ যাত্রী নিয়ে লন্ডন থেকে আসলো বিমান

এমসি কলেজ হোস্টেলে নববধূকে গণধর্ষণ, ৮ জনের বিরুদ্ধে চার্জশীট

বিশেষ প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৩ ডিসেম্বর ২০২০  

দেশ বিদেশে বহুল আলোচিত সিলেট এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে নববধূকে তুলে নিয়ে  স্বামীকে আটকে রেখে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের আলোচিত মামলায় গ্রেপ্তার হওয়া ৮ ছাত্রলীগ কর্মীকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেছে পুলিশ। 

ঘটনার ৬৫ দিন পর বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার দিকে চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) মো. আবুল কাশেমের আদালতে এ চার্জশিট প্রদান করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা শাহপরান থানার ওসি (তদন্ত) ইন্দ্রনীল ভট্টাচার্য।

অভিযোগপত্র দাখিলের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার বি এম আশরাফ উল্যাহ তাহের।

ডিএনএ টেস্টে সরাসরি ধর্ষণে জড়িত ৬ :
জানা গেছে, চার্জশিটে মামলার ৬ আসামিকে সরাসরি ধর্ষণে জড়িত এবং ২ জন সহায়তা করেন বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

অভিযোগপত্রে তরুণীকে ছাত্রাবাসে তুলে নিয়ে সরাসরি ধর্ষণের সঙ্গে অভিযুক্ত করা হয়েছে চারজনকে। তাঁরা হলেন সাইফুর রহমান, তারেকুল ইসলাম ওরফে তারেক, শাহ মো. মাহবুবুর রহমান ওরফে রনি ও অর্জুন লস্কর।

তরুণীকে ছাত্রাবাসে তুলে নিয়ে যাওয়ার আগে একটি বাসায় এক দফা ধর্ষণের অভিযোগে অভিযুক্ত করা হয় দুজনকে। তাঁরা হলেন মামলার সন্দেহভাজন হিসেবে গ্রেপ্তার মো. আইনুদ্দিন ওরফে আইনুল ও মিজবাউল ইসলাম ওরফে রাজন। 

ছাত্রাবাসে ধর্ষণ ঘটনায় সহায়তা করা ও ধর্ষণের আলামত নষ্ট করার অভিযোগে রবিউল হাসান ও মাহফুজুর রহমান ওরফে মাসুমকে মামলায় অভিযুক্ত করা করা হয়েছে। কোনো পদে না থাকলেও গ্রেপ্তার হওয়া সবাই এমসি কলেজ ছাত্রলীগের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন।

গত ২৫ সেপ্টেম্বর রাতে সিলেটের এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হন এক নববধূ (২১)। করোনার কারণে বন্ধ থাকা ছাত্রাবাসে স্বামীকে বেঁধে রেখে ওই তরুণীকে ধর্ষণ করা হয়। ওই রাতেই ধর্ষণের শিকার তরুণীর স্বামী বাদী হয়ে মহানগরের শাহপরান থানায় মামলা করেন।

দেশজুড়ে তীব্র ক্ষোভ :
ঐতিহ্যবাহী একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এমন ঘটনার খবর ছড়িয়ে পড়লে দেশজুড়ে তীব্র ক্ষোভ দেখা দেয়।নিন্দার ঝড় ওঠে দেশ বিদেশে। ঘটনার বিচার ও নারী নিপীড়ন বন্ধের দাবিতে রাস্তায় নামে সাধারণ মানুষ। তারা আসামীদেও গ্রেফতার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।

এ ঘটনার পর দেশজুড়ে ধর্ষণবিরোধী তীব্র আন্দোলন শুরু হয়। মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে ধর্ষণবিরোধী আইনও সংশোধন করে সরকার।

মামলায় আসামী যারা:
আলোচিত এ মামলায় আসামি করা হয়- বালাগজ্ঞের সাইফুর রহমান (২৫), সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার উমেদনগরের রফিকুল ইসলামের ছেলে তারেকুল ইসলাম তারেক (২৮), হবিগঞ্জ সদরের বাগুনীপাড়ার মো: জাহাঙ্গীর মিয়ার ছেলে শাহ মো: মাহবুবুর রহমান রনি (২৫), জকিগঞ্জের আটগ্রামের কানু লস্করের ছেলে অর্জুন লস্কর (২৫), দিরাই উপজেলার বড়নগদীপুর (জগদল) গ্রামের রবিউল ইসলাম (২৫) ও কানাইঘাটের গাছবাড়ি গ্রামের মাহফুজুর রহমান মাসুমকে (২৫)। এছাড়া অজ্ঞাতনামা আরও তিনজনকে আসামি করা হয়।

পরবর্তিতে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) এ ঘটনার সঙ্গে সংশ্লিষ্টতা থাকায় ৪ জনকে গ্রেফতার করে। এছাড়া সিলেট জেলা পুলিশ ২ জনকে, সুনামগঞ্জ ও হবিগঞ্জ পুলিশ ২ জনকে গ্রেফতার করে। এসএমপি পুলিশ কোনো আসামিকে গ্রেফতার করতে না পারায় সিলেটজুড়ে নিন্দার ঝড় ওঠে।

রিমান্ড ও আদালতে স্বীকারোক্তি:
পুলিশ জানায়, গ্রেপ্তারের পর আটজন আসামিকে পর্যায়ক্রমে পাঁচ দিন করে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। রিমান্ড শেষে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন তাঁরা। জবানবন্দিতে প্রধান আসামি সাইফুর, তারেক, শাহ মাহবুবুর ও অর্জুন লস্কর ধর্ষণের কথা স্বীকার করেন। রবিউল ও মাহফুজুর ধর্ষণে সহায়তা করার কথা স্বীকার করেন। 
সন্দেহভাজন দুই আসামিও আদালতে জবানবন্দি দেন। এর আগে ছয় আসামির ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ করে টেস্টের জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়। এতে ছাত্রাবাসে তরুণীকে ধর্ষণ করার প্রমাণ মেলে।

আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার:

ধর্ষণের রাতে এমসি কলেজে ছাত্রাবাসে প্রধান আসামি সাইফুর রহমানের দখলে থাকা কক্ষে অভিযান চালিয়ে আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে সাইফুরের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে মামলা করে। এই মামলায় সাইফুরের সঙ্গে পরবর্তী সময়ে শাহ মো. মাহবুবুর রহমান ওরফে রনিকে আসামি করা হয়েছে।

বহিস্কার: এছাড়াও গৃহবধূকে গণধর্ষণের ঘটনায় জড়িত চার আসামির ছাত্রত্ব এবং সার্টিফিকেট বাতিল করে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়। পাশাপাশি তাদের স্থায়ীভাবে এমসি কলেজ থেকে বহিষ্কারও করা হয়েছে। বহিষ্কৃতরা হলেন, সাইফুর রহমান, শাহ মাহবুবুর রহমান রনি, মাহফুজুর রহমান মাসুম ও রবিউল হাসান।

আরও পড়ুন
জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত