ঢাকা, ২৪ নভেম্বর, ২০২০
SylhetNews24.com
শিরোনাম:
রাসূল (সা.) কে ব্যঙ্গ করে ফ্রান্স মুসলমানদের কলিজায় আগুন লাগিয়েছে সেনাপ্রধানকে প্রধানমন্ত্রীর ‘সেনাবাহিনী পদক’ প্রদান প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ: দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষায় আমরা দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ সিলেট নগরীর পাঠানটুলায় বাসা থেকে যুবকের লাশ উদ্ধার, তরুণী আটক

‘আমার ছেলে কবরে,খুনি কেন বাহিরে’,অনশনকে ঘিরে হঠাৎ তীব্র আন্দোলন

বিশেষ প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ২৬ অক্টোবর ২০২০  

সিলেট নগরীর বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়ির সামনে আমরণ অনশনে বসেছিলেন ওই ফাঁড়িতে পুলিশি নির্যাতনে নিহত রায়হান আহমদের(৩৪) মা সালমা বেগম।

এস আই আকবর হোসেন ভুঞাসহ হত্যার সাথে জড়িত সকল আসামিকে দ্রুত গ্রেফতারের দাবিতে রবিবার সকাল ১১ টা থেকে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে তিনি অনশনে বসেন।

তাঁর সঙ্গে ছিলেন রায়হানের চাচা, চাচি, মামা, খালা ও আত্মীয়স্বজনসহ আখালিয়া এলাকাবাসী।

সকাল ১১ টা থেকে চলমান এই অনশন বিকেল সাড়ের ৪টার দিকে হঠাৎ রূপ নেয় তীব্র আন্দোলনে। রায়হানের পরিবারের সদস্যরা এবং আখালিয়া এলাকার বাসিন্দারা ব্ন্দরবাজার রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ করতে শুরু করেন।

খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনস্থলে ছুটে আসেন সিলেট সিটি করপোরেশেনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী।

বিকেল পৌনে ৫টার দিকে রায়হানের মাকে সান্তনা দিয়ে জুস পান করিয়ে অনশন ভাঙান মেয়র আরিফ। পরে বিক্ষোভকারীদের শান্ত করে অবরোধ তুলে দেন।

এর আগে সকাল ১১টায় রায়হানের মা, পরিবারের সদস্যরা বিভিন্ন ধরনের ফেস্টুন প্রদর্শন করেন। রায়হানের মাকে ‘আমার ছেলে কবরে,খুনি কেন বাহিরে’ স্লোগান লেখা ফেস্টুন হাতে বসে থাকতে দেখা যায়। 

অন্যদের হাতে থাকা ফেস্টুন লেখা-  ‘বোন বলে ডাকবে কে? আমার ভাইকে ফিরিয়ে দে’ ও ‘ফাঁসি দিয়ে প্রমাণ করো, পুলিশ নয়- জনগণ বড়’ ইত্যাদি স্লোগান।

অনশনরত রায়হানের পরিবারের সদস্যদের মাথায় কাফনের কাপড় (সাদা কাপড়) বেঁধে রাখতে দেখা যায়।

রায়হানের মা সাংবাদিকদের বলেন, হত্যাকাণ্ডের প্রায় দুই সপ্তাহ অতিবাহিত হতে চললেও মূল অভিযুক্ত আকবরকে এখনো গ্রেফতার করা হয়নি। সে কোথায় আছে-তাও এখনো স্পষ্ট নয়। এ ঘটনায় সম্পৃক্ততায় বন্দরবাজার ফাঁড়ি থেকে আকবরসহ ৭ জনকে বরখাস্ত ও প্রত্যাহার করা হলেও তাদেরকে গ্রেফতার দেখানো হয়নি। এদের মধ্যে কেবল কনস্টেবল টিটু ও হারুনকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।

তিনি জানান, এসএমপির পুলিশ লাইন্সে থাকা আসামিসহ এস আই আকবরকে গ্রেফতার না করা পর্যন্ত তাদের অনশনের ঘোষনা দেন।

উল্লেখ্য, গত ১১ অক্টোবর (রবিবার) ভোরে বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে রায়হানের মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় রাতেই কোতোয়ালি মডেল থানায় অজ্ঞাত আসামিদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন নিহতের স্ত্রী তাহমিনা আক্তার তান্নি। এ ঘটনায় ওই ফাঁড়ি ইনচার্জসহ ৪ পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত এবং তিনজনকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। মামলাটি এখন তদন্ত করছে পিবিআই। পিবিআই জানায়, তারা এসআই আকবরকে গ্রেফতার চেষ্টায় আছে।

আরও পড়ুন
জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত