21 Oct 2018
Loading
 

প্রচ্ছদ

জাতীয়

বাণিজ্য

খেলাধুলা

তথ্যপ্রযুক্তি

শিক্ষা

বিনোদন

সাহিত্য-সংস্কৃতি

ঐতিহ্য

পর্যটন

প্রবাসের সংবাদ এক্সক্লুসিভ সংগঠন সংবাদ মুক্তিযুদ্ধ আর্কইভস
শিরোনাম:
Bread Crumbs

2018-01-02 15:35:38

চাইলেও বিএনপিকে বাদ দিয়ে নির্বাচন এবার করা যাবে না: খালেদা জিয়া

সিলেটনিউজ২৪.কম

মঙ্গলবার রাতে ছাত্র দলের সমাবেশে বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, “আমরা নির্বাচনী দল, আমরা নির্বাচন করব। বাইরে রাখতে চাইলেই রাখা যাবে না। নির্বাচন করব আমরা।”

নির্দলীয় সরকারের অধীনে ওই নির্বাচনের দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, “আপনারা (সরকার) যদি মনে করেন, আমাদের লোকজন ধরে নিয়ে যাবেন। তারপর নির্বাচন ঘোষণা করবেন, সেটা আর হবে না। ২০১৪ সালের মতো নির্বাচন আর হবে না। এই দেশে নির্বাচন হবে সকল দলের অংশগ্রহণে।

“বিএনপি সবচেয়ে বড় দল, তাকে (বিএনপি) বাদ দিয়ে গ্রহণযোগ্য নির্বাচন হতে পারে না। কারণ সারা পৃথিবী বুঝে গেছে যে, হাসিনার অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন হয়নি, হবে না।”

এর আগে অনুষ্ঠানে যোগ দিতে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট চত্বর পৌঁছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে চারটার দিকে তিনি সেখানে পৌঁছান।
ফটকে তালা দেয়ায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিউশনের চত্বরে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কর্মসূচি পালনের সিদ্ধান্ত নেয় ছাত্রদল।

বিকালে সেখানে স্থাপন করা অস্থায়ী মঞ্চে বক্তব্য দেন বিএনপির কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতা। পরে সমাবেশের জন্য ইঞ্জিনিয়ার ইন্সটিটিউশন মিলনায়তন খুলে দেয়া হয়।

এর আগে মঙ্গলবার বিকালে ৩৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে সমাবেশের অনুমতি থাকলেও মিলনায়তনের গেইট বন্ধ থাকায় ভেতরে ঢুকতে পারেননি ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা। তাই ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট চত্বরে দুপুর থেকে বিক্ষোভ করে সংগঠনটির নেতাকর্মীরা।

প্রায় একমাস আগে অনুমতি নেয়া হলেও মঙ্গলবার সকালে হঠাৎ করে নিরাপত্তার কথা বলে অনুষ্ঠান করা যাবে না বলে কর্তৃপক্ষ ছাত্রদলের নেতাদের জানান। পরে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর নয়াপল্টনে সংবাদ সম্মেলন করে একথা জানিয়ে প্রশাসনের কাছে নির্বিঘ্নে সমাবেশ করতে সহযোগিতা কামনা করেন।

এদিকে বেলা ১১টার পর থেকেই ছাত্রদলের বিভিন্ন ইউনিটের নেতাকর্মীরা মিছিলসহ অনুষ্ঠানস্থলে আসতে থাকেন। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে নেতাকর্মীদের উপস্থিতি বাড়তে থাকে।

খালেদা জিয়া বলেন, দেশে গণতন্ত্র নেই, বৈধ সরকার নেই, আইনের শাসন, কথা বলার অধিকার নেই। তার প্রমাণ একটু আগে দেখলাম। অনেকদিন ধরে ছাত্ররা আলোচনা সভার প্রস্তুতি নিয়েছে। অনুমতি দিয়েছে, ভাড়াও নিয়েছে। অথচ হঠাৎ করে হলরুমে তালা লাগিয়ে দিলো। এটা কেমন আচরণ? আজকে দেশ এক ব্যক্তির দখলে। দেশ পিছিয়ে যাচ্ছে। আওয়ামীলীগ তার জন্য দায়ী। গুম, খুন বেড়েছে, দ্রব্য মূল্য বেড়েছে। মানুষের অভাবের শেষ নেই।

সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগকে মানুষ বিশ্বাস করে না। আওয়ামী লীগ যতবার ক্ষমতায় এসেছে অন্যের কাঁধে ভর করে। অবৈধভাবে ক্ষমতায় এসে মানুষ নির্যাতন করছে। বিএনপি মানুষের ভোটে ক্ষমতায় আসে। অন্যের ওপর নির্ভর করে নয়।

খালেদা জিয়া বলেন, মানুষের দুঃখের সীমা নেই। তার জন্য আওয়ামী লীগ দায়ী। সে জন্য তাদের চলে যেতে হবে। নতুন যেকোন সরকার আসতে হবে। পরিবর্তন আসতে হবে। সে জন্য একটি নিরপেক্ষ সহায়ক সরকার লাগবে। হাসিনার অধীনে কোন নির্বাচন সুষ্ঠু হয়নি। হবেও না। এ সরকার জনগণের ভোটে নির্বাচিত নয় বলেই তাদের অধীনে ভোট হতে পারবে না। পার্লামেন্ট রেখে কোন নির্বাচন হবে না।

বেগম জিয়া বলেন, পদ্মা সেতুর স্বপ্ন দেখাচ্ছে সরকার। কিন্তু পদ্মা সেতু আওয়ামী লীগের আমলে হবে না। এ সেতু জোড়া তালি দিয়ে বানানো হচ্ছে। এ সেতুতে কেউ উঠবেন না।

বিএনপির চেয়ারপারসন বলেন, ভারত আমাদেরকে স্বাধীনতার সময় সাহায্য করেছে। ভারতকে আমরা বন্ধুর মতো দেখতে চাই। বন্ধু হয়ে থাকতে চাই সবসময়। তিনি বলেন, দেশের পুলিশ খারাপ নয়, আওয়ামী লীগ পুলিশকে খারাপ বানাচ্ছে। পুলিশ নিজেদের কাজ করুক। তবে আমার অনুরোধ, আমার ছেলেদের ধরবেন না। যারা জেলে আছে ছেড়ে দিন।

তিনি বলেন, পুরো দেশটি আজ কারাগার হয়ে গেছে। আমরা সবাই বন্দি। শুধু শেখ হাসিনা এবং তার ছেলে মুক্ত।

তিনি আরও ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের শুধু ছবি তোলে আন্দোলনে আছে তা না দেখিয়ে মনপ্রাণ উজাড় করে আন্দোলনে নামার আহ্বান জানান।

বেগম জিয়া বলেন, তোমরা ঐক্য, ইমান, শৃংখলা ঠিক রাখলে সব কিছু জয় করা সম্ভব। শুধু স্লোগান দিলে হবে না। স্লোগানের ধারা পরিবর্তন করতে হবে। আগের স্লোগান দিলেন হবে না সময়ের প্রেক্ষাপট অনুযায়ী তা পরিবর্তন করতে হবে।

"তোমরা এগিয়ে চলো। ২০১৮ সাল হবে গণতন্ত্রের বছর"- বলেন খালেদা জিয়া।

তীব্র বিক্ষোভের মুখে অবশেষে ছাত্রদলের ৩৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভার জন্য ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটের হল রুম খোলে দেয় কর্তৃপক্ষ। এর আগে ইঞ্জিনিয়ার্সের সামনে অবস্থান নিয়ে দুপুর থেকে বিক্ষোভ করতে থাকে ছাত্রদল। বিকাল ৪.৩০টায় সমাবেশ স্থলে আসেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া।

সমাবেশে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় নেতাকর্মী ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ড. মঈন খান, ভাইস চেয়ারম্যান আমান উল্লাহ আমান, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সৈয়দ মুয়াজ্জেম হোসেন আলাল, হাবিব উন নবী খান সোহেল, প্রচার সম্পাদক শহিদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানি প্রমুখ।

Advertisement

জাতীয়-এর সর্বশেষ খবর

প্রচ্ছদ জাতীয় বাণিজ্য খেলাধুলা তথ্যপ্রযুক্তি শিক্ষা বিনোদন সাহিত্য-সংস্কৃতি ঐতিহ্য পর্যটন প্রবাসের সংবাদ এক্সক্লুসিভ সংগঠন সংবাদ মুক্তিযুদ্ধ আর্কইভস
Editor: Khaled Ahmed, SylhetNews24.com SNC Limited. Shah Forid Road. 30/3, Jalalabad R/A. Sylhet-3100. Bangladesh. Cell: +88 01711156789, +88 01611156789,
e-mail: [email protected], [email protected] Executive Editor: Mohammad Serajul Islam. cell:+88 01712 325665
All right ® reserved by SylhetNews24.com    Developed by eMythMakers.com & Incitaa e-Zone Ltd.