20 Nov 2018
Loading
 

প্রচ্ছদ

জাতীয়

বাণিজ্য

খেলাধুলা

তথ্যপ্রযুক্তি

শিক্ষা

বিনোদন

সাহিত্য-সংস্কৃতি

ঐতিহ্য

পর্যটন

প্রবাসের সংবাদ এক্সক্লুসিভ সংগঠন সংবাদ মুক্তিযুদ্ধ আর্কইভস
শিরোনাম:
Bread Crumbs

2016-03-09 12:59:17

এক ইউএনও’র মহতি উদ্যোগ: ভিক্ষুকদের সঞ্চয় ১ কোটি ২০ লাখ টাকা !

সিলেটনিউজ২৪.কম

‘আজকের সঞ্চয় আগামী দিনের সম্পদ’-এ মূলমন্ত্রে উজ্জীবিত হয়ে নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার ভিক্ষুকরা ব্যাংকে জমিয়েছেন প্রায় সোয়া কোটি টাকা।
 
এই উপজেলার ৯৫১ জন ভিক্ষুকের মাসিক সঞ্চয় ও প্রাপ্ত অনুদান মিলিয়ে তফসিলী একটি ব্যাংকে ১২টি পৃথক হিসাবের (একাউন্টের) বিপরীতে ওই পরিমাণ টাকা জমা হয়েছে।
 
ভিক্ষুকমুক্ত ঘোষণার পাশাপাশি পুনর্বাসিত ভিক্ষুকদের স্বাবলম্বী করতে ব্যাপক কর্ম তৎপরতা হাতে নেন তৎকালীন নির্বাহী অফিসারসহ ভিক্ষুকমুক্ত কর্মসূচির সংশ্লিষ্টরা। পুনর্বাসিত ভিক্ষুকদের নেয়া হয় উপজেলার একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পে। ওই প্রকল্পের আওতায় তারা নিজ নিজ গ্রামে গঠন করেন সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতি।
উপজেলার ৯৫১ জন ভিক্ষুকের নামে স্থানীয় সোনালী ব্যাংক লিমিটেডে সমিতির নামে পৃথক ১২টি যৌথ পরিচালনার সঞ্চয়ী হিসাব খোলা হয়। প্রতি মাসে প্রত্যকে দুইশ টাকা করে সঞ্চয় করেন। গত দুই বছরে ওইসব হিসেবে (একাউন্টে) জমা হয়েছে ৪৬ লাখ ৪৪ হাজার টাকা। এর পাশাপাশি ওইসব হিসাবে জমা পড়েছে অনুদান ও কল্যাণের ৪১ লাখ ৫৬ হাজার ১৩৩ টাকা এবং ঋণ তহবিল থেকে ৩২ লাখ ৬৫ হাজার ১০৩ টাকা।
সব মিলিয়ে একাউন্টে মোট সঞ্চয়ের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ৯ লাখ ৬৫ হাজার ২৩৬ টাকা। ‘একটি বাড়ি একটি খামার’ প্রকল্পের উপজেলা সমন্বয়কারী মো. মিজানুর রহমান হিসাবগুলো দেখভাল করেন।
 
ভিক্ষুক পুনর্বাসন প্রকল্পের তদারককারী ‘একটি বাড়ি একটি খামার’ প্রকল্পের উপজেলা সমন্বয়কারী মো. মিজানুর রহমান বলেন, সোনালী ব্যাংক লিমিটেডের স্থানীয় শাখায় যৌথ পরিচালনার ১২টি পৃথক সঞ্চয় হিসাব খোলা হয়েছে। গত দুই বছরে মোট সঞ্চয় দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ১৯ লাখ ৮৬ হাজার ২৩৬ টাকা।
 
কেসবা গ্রামের পূর্নবাসিত ভিক্ষুক জাম্মাত হোসেন (৫৭) বলেন, ‘হামরা আগত ভিক্ষা করি জীবন চালাইছিনো, সিদ্দিক ছার আসিয়া হামাক বাঁচার নতুন রাস্তা দেখাইছে, আল্লাহ তার ভাল করুক।’
 
এ বিষয়ে কথা বললে উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস.এম. মেহেদী হাসান বলেন, ‘কিশোরগঞ্জ উপজেলাকে শতভাগ ভিক্ষুকমুক্ত করার কৃতিত্ব আগের ইউএনও সিদ্দিকুর রহমানের।
সব মহলের সার্বিক সহযোগিতা নিয়ে তিনি তা সম্ভব করেছেন। পুনর্বাসিত ভিক্ষুকরা ব্যাংকের মাধ্যমে বিপুল পরিমাণ অর্থ সঞ্চয় করেছেন। যা অন্যান্যদের অনুপ্রেরণা যোগাবে।’
Advertisement

এক্সক্লুসিভ-এর সর্বশেষ খবর

প্রচ্ছদ জাতীয় বাণিজ্য খেলাধুলা তথ্যপ্রযুক্তি শিক্ষা বিনোদন সাহিত্য-সংস্কৃতি ঐতিহ্য পর্যটন প্রবাসের সংবাদ এক্সক্লুসিভ সংগঠন সংবাদ মুক্তিযুদ্ধ আর্কইভস
Editor: Khaled Ahmed, SylhetNews24.com SNC Limited. Shah Forid Road. 30/3, Jalalabad R/A. Sylhet-3100. Bangladesh. Cell: +88 01711156789, +88 01611156789,
e-mail: [email protected], [email protected] Executive Editor: Mohammad Serajul Islam. cell:+88 01712 325665
All right ® reserved by SylhetNews24.com    Developed by eMythMakers.com & Incitaa e-Zone Ltd.