19 Dec 2018
Loading
 

প্রচ্ছদ

জাতীয়

বাণিজ্য

খেলাধুলা

তথ্যপ্রযুক্তি

শিক্ষা

বিনোদন

সাহিত্য-সংস্কৃতি

ঐতিহ্য

পর্যটন

প্রবাসের সংবাদ এক্সক্লুসিভ সংগঠন সংবাদ মুক্তিযুদ্ধ আর্কইভস
শিরোনাম:
Bread Crumbs

2018-03-16 08:55:57

৫২ বছর আগে অলৌকিকভাবে বাঁচেন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান

সিলেটনিউজ২৪.কম

পাঁচ দশক আগে বিধ্বস্ত হেলিকপ্টারের একমাত্র যাত্রী হিসেবে প্রাণে রক্ষা পেয়েছিলেন বর্তমান অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান।

সেদিন মারা গিয়েছিলেন তার ২৩ সহযাত্রী। সেই কাহিনি তুলে ধরেছেন বিবিসি বাংলা।
শুধু এই হেলিকপ্টার দুর্ঘটনা থেকেই নয়, ৭১ সালে পাক বাহিনীর হাত থেকেও প্রাণে রক্ষা পেয়েছিলেন এম এ মান্নান।

যুদ্ধ চলাকালীন সময়ে জরুরী একটি  প্রয়োজনে ঢাকা থেকে বিমানে সিলেট ফিরতে চেয়েছিলেন
এম এ মান্নান। কিন্তু সন্দেহজনক ভাবে  বিমান থেকে তাকে নামিয়ে ক্যাম্পে নিয়ে যায় পাকবাহিনী। যেখান থেকে সাধারনত কেউ ফিরেনা। কিন্তু বিকেলে তাকে ছেড়ে দেয় হানাদার বাহিনী।

নির্যাতন ছাড়াই এভাবে ছেড়ে দেয়াও অলৌকিক ছিল বলে জানিয়েছেন তারঁ সহপাঠি ও রোমমেট এডভোকেট হোসেন তেীফিক চৌধুরী। তখন তারা দুজন ঢাকার আরামবাগের একটি মেসে থাকতেন।

বিমান দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা এবং পাক বাহিনীর হাত থেকে নিরাপদে ফিরে আসা নিয়ে এডভোকেট হোসেন তৌফিক চেীধুরী  লিখেছেন ‌`রাখে আল্লাহ মারে কে`।

এছাড়া গত ১৬ ফেব্রুয়ারীরাতে ট্রেনে ঢাকায় ফেরারপথে মধ্যরাতে শ্রীমঙ্গলে দুর্ঘটনায় উপবন ট্রেনের সব বগি লাইনচ্যুত হয়ে ছিটকে পড়লেও প্রতিমন্ত্রী মান্নাকে বহনকারী বগিটি লাইনচ্যুত হয়নি।ফলে বড় ধরনের একটি দুর্ঘটনার কবলে থকে তিনি রক্ষা পান। মজা করে এটাকে তিনি `‌ফেইক এক্সিডেন্ট` হিসেবে  আখ্যা দিয়েছেন। যেখানে কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

১৯৬৬ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের দুই তারিখ। সেদিন ছিল বুধবার। আমেরিকার সাহায্য সংস্থা কেয়ারের তৎকালীন ঢাকা অফিসে চাকরি করতেন এম এ মান্নান। তখন বয়সে তরুণ মান্নানকে অফিসের কাজে দেশের বিভিন্ন জায়গায় যেতে হতো।

সেদিন তাঁর কুষ্টিয়া যাওয়ার কথা। পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্স বা পিআইএ তখন কিছু হেলিকপ্টার সার্ভিস চালু করেছিল, যা তৎকালীন পূর্ব-পাকিস্তানের কিছু অঞ্চলে যাত্রী পরিবহন করতো।

দুপুর ২টা নাগাদ কুষ্টিয়ার উদ্দেশ্যে যাওয়ার জন্য হেলিকপ্টারে আরোহণ করেন মান্নান। সব মিলিয়ে ওটাতে যাত্রী ছিল ২৪ জনের মতো।

হেলিকপ্টারটি ঢাকা থেকে প্রথমে ফরিদপুর হয়ে পরে কুষ্টিয়া যাওয়ার কথা। ঢাকা থেকে ফরিদপুর যেতে ২২ মিনিট এবং ফরিদপুর থেকে কুষ্টিয়া যেতে ২০ মিনিট সময় লাগার কথা ছিল।

৫২ বছর আগের সেই ঘটনার স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে এম এ মান্নান বলেন, ‘ফরিদপুরের কাছাকাছি যখন হেলিকপ্টারটি পৌঁছায় তখন ওপর থেকে বিকট আওয়াজ শোনা যাচ্ছিল।’

‘মুহূর্তের মধ্যেই হেলিকপ্টারটি ঘুরতে-ঘুরতে মাটিতে পড়ে যায়। আমি তখন আল্লাহকে ডাকছিলাম আর মায়ের কথা ভাবছিলাম।’

মাটিতে পড়ার পর ওই হেলিকপ্টারের মধ্যে প্রচণ্ড ধোঁয়ার সৃষ্টি হয়। প্রাণপণ চেষ্টা করে বিধ্বস্ত হেলিকপ্টার থেকে বেরিয়ে আসেন মান্নান। তখন ধানক্ষেতে কর্মরত কয়েকজন কৃষক তাকে উদ্ধার করে প্রথমে তাদের বাড়িতে এবং পরে হাসপাতালে নিয়ে যায়।

অনেকটা অলৌকিকভাবে জীবিত থাকা এম এ মান্নান ওই ঘটনা মনে করে এখনো নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করেন এবং সৃষ্টিকর্তার কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

Advertisement

জাতীয়-এর সর্বশেষ খবর

প্রচ্ছদ জাতীয় বাণিজ্য খেলাধুলা তথ্যপ্রযুক্তি শিক্ষা বিনোদন সাহিত্য-সংস্কৃতি ঐতিহ্য পর্যটন প্রবাসের সংবাদ এক্সক্লুসিভ সংগঠন সংবাদ মুক্তিযুদ্ধ আর্কইভস
Editor: Khaled Ahmed, SylhetNews24.com SNC Limited. Shah Forid Road. 30/3, Jalalabad R/A. Sylhet-3100. Bangladesh. Cell: +88 01711156789, +88 01611156789,
e-mail: [email protected], [email protected] Executive Editor: Mohammad Serajul Islam. cell:+88 01712 325665
All right ® reserved by SylhetNews24.com    Developed by eMythMakers.com & Incitaa e-Zone Ltd.